এই লজ্জা এরশাদের নাকি সরকারের গৃহপালিত সংসদের বিরোধীদলের...??? - JONOPRIO24

Breaking

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Post Top Ad

Responsive Ads Here

মঙ্গলবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৫

এই লজ্জা এরশাদের নাকি সরকারের গৃহপালিত সংসদের বিরোধীদলের...???

রনি মোহাম্মেদ : জাতীয় পার্টির কেন এই হাল..!!  জাতীয়তাবাদী ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী দলটির শীর্ষ নেতাকে সাধারণ মানুষ দূরের কথা আজ দলের নেতারাও বিশ্বাস করতে পারছেন না কেন..?? আমার দেখা ৯০ এর পট পরিবর্তনের পর সাংগঠনিকভাবে সারাদেশে জাতীয় পার্টি ব্যাপক জনপ্রিয় ছিল। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৯১ সালে ৩৫টি এবং ৯৬ সালে ৩২টি আসন পেয়েছিল এই দলটি। সংসদ নির্বাচনে তিনশ আসনে প্রার্থী দেয়া যে দলের কোনো ব্যাপার ছিল না। আথচ কালের প্রেক্ষাপটে আজ ২৩৫ পৌরসভার নির্বাচনে মাএ ৫১ পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী দেয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা যদি রাজনৈতিক ভাবে বিচার করি কিংবা কাগজে-কলমে দেওয়া মূল প্রার্থীদের মাঝে ১০ থেকে ১২ জন মেয়র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন আমার মতে সারাদেশে। আর বাকি প্রার্থী গুলোকে এমনিতেই দাঁড় করিয়ে দেয়া হয়েছে শুধু মাএ দলের মান বাঁচানোর জন্য। অথচ আজ সংসদের বাইরে থাকা আরেকটি দলের (বিএনপির) নেতাদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার মামলা। প্রতিদিন আদালতে হাজিরা দিতে হচ্ছে শত শত নেতা ও কর্মীকে। কেন্দ্রীয় নেতা থেকে শুরু করে ২০ থেকে ২৫ হাজার নেতাকর্মী আজ কারাগারে। নিত্যদিন গণগ্রেফতার থেকে বাঁচতে হাজার হাজার নেতাকর্মী রয়েছে পলাতক। হাজার হাজার নেতাকর্মীরা ফেরারি জীবন যাপন করছে দেশের আনাছে কানাছে। শত শত নেতাকর্মীরা বিদেশে রয়েছেন গ্রেফতার এড়াতে। জেলা-উপজেলা পর্যায়ের প্রথম সারি থেকে শুরু করে দ্বিতীয় সারি ও তৃতীয় সারির নেতারাও আজ কারাগারে। যারা বাইরে রয়েছেন তারাও আছেন মামলা-হামলার ভয়ে দৌঁড়ের ওপর। দেশের এমনও পৌরসভা আছে যেখানে বর্তমান প্রেক্ষাপটে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার মতো অবস্থা তাদের নেই তাদের, তারপরও দলের ২৪ ঘণ্টার নোটিশেই বিএনপি সবগুলো পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী দিয়েছে। শুধু তাই নয় খোঁজ নিয়ে দেখলাম যে, কৌশল হিসেবে দ্বিতীয়, তৃতীয় বিকল্প প্রার্থীর চিন্তা মাথায় রেখে দলীয় নেতাদের প্রার্থী করা হয়েছে। বেক্তিগত ভাবে আলাপ করেছিলাম দলটির কয়েকজন সিনিয়র নেতার সাথে, তাদের কথার মাঝে বুঝলাম যে নির্বাচনে প্রার্থী হতেন এমন অধিকাংশ নেতা আজ কারাগারে থাকার পরও দলের যা অবস্থা তাতে প্রতিটি পৌরসভায় ৮ থেকে ১০ জন করে নেতা রয়েছেন যারা মেয়র প্রার্থীর যোগ্য। আমার দেখা, গত ৬ ডিসেম্বর রোববার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় পার্টির সংবিধান সংরক্ষণ দিবসের আলোচনা সভায় এরশাদ নিজেই বলে পেলেছেন, ২৩৫ পৌরসভায় মেয়র পদে প্রার্থীদের নাম যেখানে ঘোষণা করার কথা, সেখানে মাত্র ৫১টি পৌরসভায় প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া একটি পুরাতন দলের জন্য লজ্জার বিষয়। তা হলে কি ধরে নিবোযে,৫ জানুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনের মাধ্যমে এই দলটির সাংগঠনিক কর্মকান্ডের ধস নামতে শুরু করলো..?? সবশেষ আমার দেখা ২০১৪ সালে ৪৬২টি উপজেলা নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে মাত্র দুজন প্রার্থী জয়ী হন। তা ছাড়া গত বছরে ৩ সিটি নির্বাচনও এরশাদ সমর্থিত প্রার্থীদের হয়েছিল ভরাডুবি। ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে মেয়র প্রার্থী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন ভোট পান মাএ দুই হাজারের কিছু বেশি এবং উত্তরের মেয়র প্রার্থী বাহাউদ্দিন আহমেদ বাবুল

 ভোট পান এক হাজারের কিছু বেশি। অথচ বামপন্থী প্রার্থী জোনায়েদ সাকী এদের ছেয়ে কয়েকগুণ বেশি ভোট পান। প্রশ্ন হলো, পরজীবী রাজনীতি করলে যা হয় জাতীয় পার্টির অবস্থা এখন তেমনই। আপনাদের কে একটি গাছের কথা বলি, নাম তাঁর ''স্বর্ণলতা''..!!, স্বর্ণলতা নাম হলেও গাছটির কিন্ত মেরুদন্ড নেই। গাছটিকে পরগাছা হিসেবে হয়তো অনেকেই চেনেন। অন্য উদ্ভিদের ওপর নির্ভর করে স্বর্ণলতা গাছটি বেড়ে ওঠে। দেখতে সুন্দর হলেও গাছটির নিজের দাঁড়ানোর কোনো শক্তি নেই। আজ জাতীয় পার্টির অবস্থা আমার মতে এ গাছের মতোই..!! নিজস্ব রাজনীতি না থাকায় দলটি ক্রমান্বয়ে ক্ষয়ে ছোট হয়ে যাচ্ছে। অদূর ভবিষ্যতে এ দলের অবস্থা হয়তো মুসলিম লীগের চেয়েও খারাপ হবে। কারণ, মুসলিম লীগের আদর্শ আছে, আমারতো মনে হয় জাতীয় পার্টির সেটাও নেই। যার জন্য ঢাকঢোল পিটিয়ে মেয়র প্রার্থী দেয়ার চেষ্টায় দৌঁড়ঝাপ করলেও শেষ পর্যন্ত দলটি মুসির প্রসব করেছে। হাজার হাজার নেতা কর্মী কারাগারে এবং জেল-জুলুম-নির্যাতন-হামলা-মামলার পরও জনগণের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় অনুষ্ঠিতব্য ২৩৫ পৌরসভায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য বিএনপির কয়েক হাজার নেতা পেয়েছে। প্রতিটি পৌরসভায় ধানের শীষ নিয়ে ৪-৫ জন করে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য চেষ্টা তদবির করেছেন। অথচ ঘোষণা দিয়ে, তৈল মর্ধন করে, টেলিফোন এমনকি অনুনয়-বিনয় করে নির্বাচনে লাঙ্গলের প্রার্থী করতে পারেনি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। সারমর্ম বলতে চাই,সুবিধাবাদী চরিত্রের কারণে এরশাদ কি দেশের রাজনীতিতে ক্রমান্বয়ে এতিম হয়ে যাচ্ছেন? তাহলে চলমান রাজনীতিতে জাতীয় পার্টির এই নিদারুণ পরিণতি থেকে শেখার আছে অনেক কিছু। আর এই ভাবে চলতে থাকলে দিনদিন সংকুচিত হয়ে আসবে এরশাদের এবং জাতীয় পাটির রাজনীতির পৃথিবী....

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Top Ad

Responsive Ads Here